আপনার স্বামী কাকে বেশি পছন্দ করেন – আপনাকে না আপনার মা’কে? জেনে নিন সে’টা বোঝার সহজ উপায়।

অল্পেতে রেগে যায় অথচ সবচেয়ে বেশি ভালোবাসে। কাজে সামান্য ভুলচুক হলে বকাবকি করে বাড়ি মাথায় তোলে অথচ মনটা আদতে খুবই নরম।

সব কিছু বুঝে উঠতে পারে না কিন্তু অপত্য স্নেহ দিয়ে সব কিছু মানিয়ে নেয়। সমস্ত সহ্য করতে পারে কিন্তু তাই বলে অল্পে হার স্বীকার করে না।

সংসারের জন্য দিনরাত খেটে চলে অথচ কোথাও যেন সে একা। শান্ত কিন্তু দৃঢ়।

মায়েদের স্নেহ আর শাসন বিভিন্ন ভাবে প্রকাশ পায়। আপনার মায়ের ক্ষেত্রে ব্যাপারটা কী রকম? উনি কি অত্যন্ত বিচক্ষণ কেউ? আপনার যাবতীয় আবেগ আর মনের কথা ধরে ফেলতে মায়েদের জুড়ি নেই। হাজার মানুষের ভিড়েও আপনার মা আপনার মনমেজাজের রকমফের, মনের ব্যথা বা আত্মবিশ্বাসের যে কোনও রকম অভাব সহজেই আঁচ করে নিতে পারবেন। শরীর স্বাস্থ্যের ব্যাপারে মায়েদের যাবতীয় উপদেশ অত্যন্ত কার্যকরী এবং সকলের সঙ্গেই তাঁদের ব্যবহার অত্যন্ত নম্র আর স্নেহ মাখানো।।

অন্তত আমার মা ঠিক তেমনটাই। অতএব আমার ভালোবাসার মানুষটাকে যখন আমার মায়ের সঙ্গে প্রথম আলাপ করিয়েছিলাম; আমি নিশ্চিত ছিলাম যে ওরা একে অপরকে বেশ পছন্দ করবেই এবং তেমনটাই হয়েছিল। ওদের প্রথম আলাপ বেশ জমাটি ছিল এবং সেই শুরুতেই একে অপরকে ওরা বেশ পছন্দ করেছিল।   

সেই প্রথম আলাপের পর প্রায় দশ বছর কেটে গেছে এবং ওদের সম্পর্ক এখন আগের চেয়েও বহুগুণ গভীর।

আপনার গল্পও কি খানিকটা তেমনই? রইল একটা চেকলিস্ট যে’টা মন দিয়ে দেখলে আপনি ঠাহর করতে পারবেন যে আপনার স্বামী আপনার চেয়ে আপনার মাকে বেশি ভালোবাসেন কিনা। নীচের প্রশ্নগুলোর পরিপ্রেক্ষিতে তিনটে উত্তর ‘হ্যাঁ’ হলেই বুঝতে হবে যে আপনার আশঙ্কাই সঠিক।

১। আপনার পোশাকের পছন্দ, খাওয়াদাওয়া রুচি বা লাইফস্টাইল বিষয়ক বিষয়ে কি ও একটানা আপনাকে আপনার মায়ের সঙ্গে তুলনা করে? আপনার মাকে বারবার আদর্শ উদাহরণ হিসেবে টেনে আনে?

অনেক সময় আমাদের বর আমাদের মায়ের সঙ্গে আমাদের তুলনা টেনে আনে, কখনও কখনও সেই তুলনাটা অকারণও বটে। যেমন আমার মায়ের রান্নার সঙ্গে আমার রান্নার তুলনা করাটা ঘোরতর অপরাধ। আমার মা রান্না করতে খুব ভালোবাসে আর আমার চেয়ে বহুগুণ ভালো রাঁধিয়ে। আমার রান্না স্রেফ কাজ চালিয়ে নেওয়ার জন্য আর মায়ের মত রান্না করতে পারার স্বপ্ন আমি কস্মিনকালেও দেখিনি।

এ বিষয়ে আমাদের বক্তব্য কী? স্বামীকে বুঝিয়ে বলুন ব্যক্তি স্বাধীনতার গুরুত্ব কতটা এবং সবার অধিকার আছে নিজের মত করে নিজের জীবন সাজিয়ে নেওয়ার। প্রয়োজনে বার বার ওকে মনে করিয়ে দিতে হবে আপনার জীবনে আপনার ব্যক্তিগত পছন্দ অপছন্দ আপনি নিজের রুচিতেই ঠিক করে নেবেন, অন্য কারুর আদর্শ-বোধে নয়। এই ব্যাপারটা বার বার স্পষ্ট করে দিতে পারলেই আপনার সমস্যা অনেকটা কমে আসবে।

২। ও কি মাঝেমধ্যেই আপনাকে আরও বেশি করে আপনার মায়ের মত হয়ে উঠতে বলে?

মাঝেমধ্যেই কি আপনাকে শুনতে হয় যে “তুমি তোমার মায়ের মত কেন নও বলো তো”? এমন প্রশ্ন শুনলে আপনার মন খারাপ হওয়াটা স্বাভাবিক। এ’টা তখনই ঘটে যখন আপনার স্বামী মনে মনে সবসময় আপনার মায়ের চরিত্রের সঙ্গে আপনার প্রতিটি পদক্ষেপের ঠিক বেঠিক বিচার করে চলেন।

কী করা উচিৎ – দু’টো আঙুল ওর চোখের সামনে মেলে ধরুন আর বলুন “দু’জন মানুষ, দু’টো আলাদা মগজ, দু’টো আলাদা হৃদয়। কেউ কারুর মত হতে পারে না, হওয়া উচিৎও নয়”।  

৩। নিজের ঘনিষ্ঠ বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে গল্পগুজব করার সময় কি ও মাঝেমধ্যেই আপনার মায়ের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়ে ওঠে?

মাঝেমধ্যেই আপনার মায়ের ভূয়সী প্রশংসা করা, আপনার মায়ের পছন্দগুলোর প্রতি অতিমাত্রায় সমীহ প্রকাশ করা আর এমন ভাবে কথা বলা যে আপনার মা হচ্ছে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠতম নারী। এগুলো হচ্ছে স্পষ্ট লক্ষণ যে ও শাশুড়ি মায়ের একনিষ্ঠ ভক্ত। তবে এতে আপনার চিন্তার কিছু নেই।

সাবধান থাকুন – বিরক্ত হয়ে কখনও নিজের মায়ের সম্বন্ধে এমন বিষয়ে নিন্দে করে বসবেন না যে বিষয়গুলো আপনি তাঁর মেয়ে বলেই জানেন। এ’তে আপনার স্বামীর কাছে আপনিই নীচু মনের মানুষ হিসেবে প্রতিপন্ন হবেন। আপনার বিবেকেও সে দাগ চিরকালের জন্য লেগে থাকবে।

৪। মাঝেমধ্যেই সে আপনার বাপের বাড়ি ঘুরতে যাওয়ার কারণ খোঁজে।

আপনার বর কি মাঝেমধ্যেই আপনার বাপের বাড়ি যাওয়ার সুযোগ খোঁজেন? এর বহুবিধ কারণ হতে পারে – যে’টা আপনার মায়ের জামাই আদর হতে পারে  বা তাঁর হাতের রান্না। কারণ যাই হোক, এই ব্যাপারটা তো আপনার জন্য বেশ সুবিধেজনক, তাই নয় কি?

৫। আপনার মায়ের জন্যে মাঝেমধ্যেই খুব দামী উপহার কিনে ফেলা।

আপনার মায়ের জন্মদিনই হোক বা আপনার বরের অফিস ট্রিপ, যে কোনও সুযোগ পেলেই কি আপনার বর আপনার মায়ের জন্য দামী উপহার কিনে ফেলছেন নিজের পছন্দে? এর মানে কিন্তু সুস্পষ্ট; তিনি আপনার মায়ের প্রতি অত্যন্ত অনুগত; হয়ত বা আপনার চেয়েও বেশি।

কারণ? উপহার কেনা আদৌ সহজ নয় এবং রীতিমত ব্যয়বহুল এবং সময়সাপেক্ষ ব্যাপার, বিশেষত অফিস ট্রিপে। আর আপনার বর যখন সবচেয়ে ভালো উপহারটা আপনার মায়ের জন্য বেছে নিচ্ছেন, তখন এ’টা স্পষ্ট যে উনি আপনার মায়ের একজন আদর্শ ভক্ত।

তবে এ বিষয়ে চিন্তিত হবে না। এ’টা আদতে বেশ আনন্দের ব্যাপার। কারণ আপনার দু’জনেই পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মানুষটির প্রতি অনুগত – “মা”।

Translated by Tanmay Mukherjee

loader