নতুন সম্পর্ক তৈরির পর শরীরের প্রাইভেট পার্টের দুর্গন্ধ তৈরি করতে পারে সমস্যা।

মহিলাদের সব চেয়ে বড় সমস্যা হল যে কোনও শারীরিক বিষয় নিয়ে মন খুলে আলোচনা করতে না পারা। আর সে বিষয়টা যদি সম্পর্কের গোপন দিকগুলো নিয়ে হয় তাহলে তো কথাই নেই; সে সব নিয়ে আলোচনা মানেই মহিলারা লজ্জায় চুপ করে থাকবেন। কিন্তু সমস্যা ঘনীভূত হয় যখন মহিলাদের অলঙ্ঘনীয় লজ্জার আড়ালে তাঁদের জটিল সমস্যাগুলো ধামাচাপা পরে যায়। তার পরিণতি হতে পারে ভয়ঙ্কর।

এই প্রবন্ধে আমরা তেমনই একটি সংবেদনশীল বিষয়ে আলোচনা করব; মহিলাদের গোপনাঙ্গের দুর্গন্ধ নিয়ে। প্রথমেই বলে রাখা ভালো, এমনটা ঘটলে আপনাদের উচিৎ সোজাসুজি ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া। দুর্গন্ধের কারণ কী কী হতে পারে?

সিক্রেশনের গন্ধ।

যৌনমিলনের সময় যখন নারী এবং পুরুষ দু'জনেই উত্তেজিত হয়ে পড়েন তখন দু'জনের ঘামের সঙ্গে ভ্যাজিনাল লুব্রিকেশন, বীর্য আর সিক্রেশন এক সঙ্গে মিলেমিশে এক অদ্ভুত গন্ধের সৃষ্টি করতে পারে। আর সব রকমের লুবস আর স্পার্মিসাইড কস্তূরীর মত গন্ধ তৈরি করতে পারে।

দু'জনের গোপন অঙ্গের দুর্গন্ধ।

যৌন মিলনের সময় ভ্যাজিনা থেকে এক ধরণের অ্যাসিডিক পদার্থ নিঃসৃত হয় আর অন্য দিকে পেনিস থেকে বের হয় এক ধরণের অ্যালকালাইন পদার্থ। আর এই দু'টো মিলে মিশে এক ধরণের অদ্ভুত গন্ধ সৃষ্টি হয়। আর এই গন্ধের সঙ্গে ভ্যাজিনাল ফ্লুইড বা স্পার্মের গন্ধের সঙ্গে আদৌ কোনও মিল নেই। যৌনমিলনের সময় শরীরের পিএইচ লেভেলে লো হয়ে পড়ে আর সে'টা গন্ধের অন্যতম মূল কারণ। খাওয়াদাওয়ার কারণেও কমে আসতে পারে শরীরের পিএইচ লেভেল।

রাফ সেক্স।

দেখা গেছে যে কন্ডোম ব্যবহার করলেও কিছুটা গন্ধ বের হয়ই। তাছাড়া যৌনমিলন যদি খুব রাফ হয় তা'হলে ঘর্ষণের জন্য ভ্যাজিনাতে ফোলা ভাব দেখা দিতে পারে। এর ফলে তৈরি হতে পারে এক অন্যরকম দুর্গন্ধ। এ'টা অবশ্য কন্ডোমের গায়ে লাগানো লুব্রিকেন্টের প্রভাবেও হতে পারে।

ব্যাক্টেরিয়াল ইনফেকশন।

যৌনমিলনের সময় উৎপন্ন হওয়া গন্ধের প্রকৃতি যদি পালটে যেতে থাকে তা'হলে অবশ্যই ব্যাক্টেরিয়াল ইনফেকশনের হয়েছে কিনা তা যাচাই করতে পরীক্ষা করানো উচিৎ। আপনার ভ্যাজিনার পিএইচ ব্যালেন্সের কারণে এক ধরণের ব্যাক্টেরিয়াল পদার্থ বের হয়। তাছাড়া সিমেনে কোনও রকমের ইনফেকশন থাকলেও এমন ধরণের দুর্গন্ধ সৃষ্টি হতে পারে। ভ্যাজিনা থেকে এক ধরণের সাদা রঙের ডিসচার্জ বের হয়, সে'টা কারণেও তৈরি হতে পারে এমন দুর্গন্ধ।

প্রাইভেট-পার্টস পরিষ্কার না রাখার বদভ্যাস।

অনেকে নিজের শরীরের বাকি অঙ্গগুলোর মত, নিজের গোপন অঙ্গকে সুস্থ এবং পরিষ্কার রাখার ব্যাপারে যথেষ্ট সচেতন নন। এর ফলে ময়লা আর ঘাম মিশে তৈরি হতে পারে দুর্গন্ধ। এই জন্যেই সেক্স করার আগে এবং পরে প্রাইভেট পার্টস ভালো করে ধুয়ে ফেলা উচিৎ। আর গোপনাঙ্গ বার বার ধুলে যে কোনও রকম সংক্রমণের সম্ভাবনাও অনেকটাই কমে যায়।

এস টি ডি।

যৌন মিলনের পরে যদি অতিরিক্ত দুর্গন্ধ তৈরি হয় তা'হলে সে'টা সেক্সুয়ালি ট্রান্সমিটেড ডিজিজ ট্রাইকোমোনিয়াসিসের আগাম ইঙ্গিত হতে পারে। কাজেই তেমন হলে পরীক্ষা করিয়ে নিশ্চিত হওয়া দরকার যে আপনার এস টি ডি হয়েছে কিনা।

ইউরিন ইনফেকশন।

অনেক সময় ইউরিন ইনফেকশনের জন্য মহিলাদের গোপন অঙ্গ থেকে দুর্গন্ধ বের হয়। সাধারণত দেখা যায় যে ইউরিন ইনফেকশনের শুরুর দিকে ইনফেকশন আঁচ করা সম্ভব হয় না। সেই সময় যদি মহিলারা নিজের পার্টনারের সঙ্গে যৌনমিলনে লিপ্ত হন তাহলে দুর্গন্ধ সৃষ্টি হতে পারে।

সূত্র: hindi.boldsky.com

 

Translated by Tanmay Mukherjee

loader