এক সপ্তাহের মধ্যে ব্রেস্টমিল্ক বাড়ানোর ৫টা উপায়।

শিশুর জন্মের পর কিছু মহিলার ব্রেস্টমিল্ক সহজে এবং সঠিক পরিমাণে আসতে চায় না অথবা তাঁদের ব্রেস্টমিল্ক আসতে অনেক সময় লাগে।   কিছু মহিলার ক্ষেত্রে ব্রেস্টমিল্কের উৎপাদন এতটাই কম হয় যে অনেক ক্ষেত্রে তাদের শিশুদের খিদে পুরোপুরি মেটে না। অথচ এই সময়ে শিশুর সঠিক পরিমাণে ব্রেস্ট মিল্ক পাওয়াটা তার বিকাশের জন্য অত্যন্ত জরুরী। একজন নবজাতক তার খাদ্যের ব্যাপারে পুরোপুরি ব্রেস্টমিল্কের ওপর নির্ভরশীল।

এই প্রবন্ধে এমন কিছু ঘরোয়া উপায় বলা রইল যেগুলোর মাধ্যমে মহিলাদের ব্রেস্টমিল্ক বাড়িয়ে তোলা সম্ভব।

মেথির দানা।

নতুন মায়েদের ব্রেস্টমিল্ক বাড়িয়ে তুলতে সবচেয়ে উপকারী হচ্ছে মেথির দানা। ব্রেস্টমিল্ক বাড়াতে মেথির দানার প্রয়োগ বহুযুগ ধরে আমাদের দিদিমা ঠাকুমারা করে আসছেন। মেথির দানায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা-৩ যা ব্রেস্টমিল্ক বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করে। ওমেগা-৩ বাদেও মেথির দানায় রয়েছে বিটাক্যারোটিন, ভিটামিন বি আর প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম যা শিশুর বিকাশের জন্যও অত্যন্ত উপকারী।

মুসুরির ডাল।

মুসুরির ডাল ব্রেস্টমিল্ক বাড়িয়ে তোলার জন্য বেশ কার্যকরী। এর কারণ মুসুরির ডালে রয়েছে প্রোটিন আর ব্রেস্ট মিল্ক উৎপাদনের জন্য প্রোটিন বেশ দরকারী। এ ছাড়া মুসুরির ডালে রয়েছে যথেষ্ট পরিমাণে আয়রন আর ফাইবার যা ব্রেস্টমিল্ক তৈরি করতে সাহায্য করে।

স্তন পালটে ব্রেস্টফীড করান।

অনেক মায়েরা এক দিকের স্তন দিয়ে ব্রেস্টফীড করান। এ'টা সঠিক পদ্ধতি নয়। ব্রেস্টফীড করানোর সময় মায়েদের উচিৎ ব্রেস্ট অদলবদল করে শিশুকে দুধ খাওয়ানো। তাছাড়া এমন ভাবে ব্রেস্টফীড করানো বাচ্চাদের জন্যও ভালো। ব্রেস্টমিল্কের সময় দু'দিকের স্তন সমান ব্যবহার হলে দুধ উৎপাদন বাড়বে। একবার ব্রেস্টফীড করানোর সময় অন্তত দুই থেকে তিন বার স্তন পালটানো উচিৎ।

দুধ বা দুধ থেকে তৈরি অন্যান্য খাবার।

অনেক সময় সন্তানপ্রসবের পর মায়েদের দুধ বা দুধ থেকে তৈরি অন্যান্য খাবার খাওয়ার উপদেশ দেওয়া হয়। কারণ এই ধরণের খাবার খেলে শরীরে সেই সব স্নেহপদার্থ যোগ হয় যা মাখন বা তেল থেকে পাওয়া যার আর এর ফলে ব্রেস্টমিল্ক বাড়ে। তাছাড়া এই ধরণের খাবার আপনার শরীরকেও বাড়তি এনার্জির যোগান দেয়। অতএব দুধ বা দুধ জাতীয় খাবারদাবার অবশ্যই খাওয়া উচিৎ।

তুলসী পাতার চা।

তুলসী পাতায় রয়েছে ভিটামিন কে যা কিনা নতুন মায়েদের ব্রেস্টমিল্ক বাড়াতে সাহায্য করে। নিজের ব্রেস্টমিল্ক বাড়াতে চাইলে তুলসী পাতা জলে ফেলে ফুটিয়ে নিন আর তাতে এক চামচ মধু মিশিয়ে নিয়মিত পান করুন।

আর এই সবকিছুর বাইরে যে'টা জরুরী সে'টা হচ্ছে সঠিক খাবারদাবার সঠিক পরিমাণে খাওয়া। সঠিক খাওয়াদাওয়া আপনার এবং শিশুর স্বাস্থ্যের জন্যও অত্যন্ত জরুরী। আর শাকসবজি আর মরসুমি ফলমূল যত খাবেন ততই ভালো।

 

Translated by Tanmay Mukherjee

loader