শীতকালে শিশুদের জন্য যে ছ’টা খাবার অত্যন্ত উপকারী।

শীতকালে বাচ্চাদের শরীর সুস্থ এবং সতেজ রাখতে ওদের এমন সব খাবারদাবার খাওয়ানো উচিত যাতে রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন সি এবং মিনারেল। তার কারণ এই ধরণের এই ধরণের খাবার শিশুদের ইমিউনিটি মজবুত করতে সাহায্য করে যা’তে যে কোনও ধরণের রোগ ওদের সহজে কাবু না করে ফেলতে পারে। সেই জন্যে নিচে তেমনই কিছু খাবারের কথা বলা রইল যা শীতকালে আপনার শিশুকে অবশ্যই খাওয়ানো উচিত:

কমলা লেবুর জুস।

 

কমলা লেবুতে থাকে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি যা বাচ্চাদের রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। শীতকাল রোজ বাচ্চাকে দিন কমলা লেবুর জুস। তবে খেয়াল রাখবেন, বাচ্চাকে শুধু ঘরে তৈরি ফ্রেশ জুসই দেবেন, বাইরে থেকে কেনা প্যাকেট  জুস নয়।

ডাল

ডালে রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে প্রোটিন এবং সেই কারণেই আপনার বাচ্চার ডায়েটে ডাল যেন অবশ্যই থাকে। এ’তে আপনার শিশু যথেষ্ট পরিমাণে পুষ্টি-লাভ করবে এবং ওর শারীরিক বিকাশও সঠিক ভাবে হবে।

দুধ আর গুড়।

ঠাণ্ডা যখন বেশ জাঁকিয়ে পড়বে তখন আপনার বাচ্চাকে আপনি দুধ আর গুড় খাওয়াতে পারেন। কারণ গুড় শরীরে উষ্ণতা আনে। অতএব এই সময় বাচ্চাদের দুধ আর গুড় খাওয়ানো যেতেই পারে।

বাদাম।

আপনি আপনার বছর দেড়েকের বাচ্চাকেও নিশ্চিন্তে বাদাম খাওয়াতে পারেন। শুধু খেয়াল রাখবেন বাচ্চাকে বাদাম দিতে হলে তা ভিজিয়ে, ভালো করে ঘষে, দুধের সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়ানো উচিত। এতে বাচ্চাদের শরীর উষ্ণতা লাভ করবে আর শীতের প্রকোপ থেকেও তারা কিছুটা রেহাই পাবে।

মরসুমি ফল এবং সবজি।

 

নিজের শিশুকে যতটা সম্ভব শীতকালের ফল আর সবজির স্বাদ উপভোগ করতে দিন। তার জন্য আপনি এই সব ফল বা সবজির জুস করে মাঝে মধ্যে দুই তিন চামচ করে খাওয়াতে পারেন। এ’টা শুধু শীতের জন্যই নয়, শরীরের ইমিউনিটি মজবুত করতেও অত্যন্ত কার্যকরী।

ডিম

ডিম খেলে দেহে উষ্ণতা আসে, এ’টা সবাই জানেন। শীতের দিনগুলোতে আপনার শিশুকে অল্প ডিম খাওয়াতে পারেন। এ’তে আপনার শিশুর ঠাণ্ডা কম লাগবে এবং সবচেয়ে বড় কথা শরীরের ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণ করতে ডিমের জুড়ি নেই।

এ’ছাড়া চেষ্টা করুন সকালের নরম রোদে শিশুকে বসিয়ে রাখতে। এ’তে ওর শরীর পাবে যথেষ্ট পরিমাণে ভিটামিন ডি। ভিটামিন শরীরের জন্য অত্যন্ত উপকারী।

 

Translated by Tanmay Mukherjee

loader