শীতকালে স্নানের আগে নিজের ত্বকে এই চারটে জিনিস মাখলে মিলবে সুফল!

শীতকালে গায়ের রঙ কালো হয়ে পড়া নতুন কিছু নয়। শুধু তাই নয়, এই সময় আপনার স্কিন হয়ে ওঠে নির্জীব আর শুষ্ক। কিন্তু আপনি কখনও ভেবে দেখেছেন যে এই সমস্যাগুলো ঠিক কী কী কারণে দেখা দেয়? এই সমস্যাগুলোর প্রতিকারই বা কী? শীতকালের যাবতীয় ত্বকের সমস্যার কারণ আর প্রতিকারগুলো নিয়েই এই প্রবন্ধ। নীচে দেওয়া রইল এমন কিছু টিপস যে’গুলো আপনাকে শীতকালেও সুন্দর এবং উজ্জ্বল করে তুলবে।

কাঁচা দুধ

ফেস ওয়াশ ব্যবহার করার আগে এক টুকরো তুলো কাঁচা দুধে ডুবিয়ে তা দিয়ে নিজের মুখ ভালো করে পরিষ্কার করে নিন। প্রাকৃতিক হাওয়ায় মুখ শুকিয়ে নিন এবং তারপর উষ্ণ জলে ভালো করে নিজের মুখ ধুয়ে ফেলুন। আসলে কাঁচা দুধ এক ধরনের ন্যাচারাল ক্লেন্সার। এ’টার ব্যবহারে ত্বক হয়ে ওঠে উজ্জ্বল এবং নরম।

দই আর আটার স্ক্রাব।

স্নান করার আগে চেষ্টা করুন প্রাকৃতিক উপায় ব্যবহার করে নিজের মুখ আর শরীর স্ক্রাব করে নিতে। কী ভাবে তৈরি করবেন সেই প্রাকৃতিক স্ক্রাব? খুব সহজ; দইতে খানিকটা আটা, বেসন আর অল্প হলুদ মিশিয়ে তৈরি করে নিন পেস্ট যে’টা আপনার জন্য ন্যাচারাল স্ক্রাবের কাজ করবে।

সেই পেস্টকে গোটা শরীরে লাগিয়ে হাল্কা হাতে তিন থেকে চার মিনিট মাসাজ করুন আর কিছুক্ষণ পর জলে ধুয়ে ফেলুন। এ’তে আপনার ত্বক হয়ে উঠবে আরও মোলায়েম। এ ছাড়া গরম দুধে সুজি মিশিয়েও আপনি তৈরি করে নিতে পারেন ঘরোয়া স্ক্রাব; সে’টাও যথেষ্ট কার্যকরী।

নিয়মিত মশ্চারাইজার ব্যবহার করুন।

এমন মশ্চারাইজার ব্যবহার করুন যা’তে তেল আছে, বাটার বেসের মশ্চারাইজার এড়িয়ে চলাই ভালো। যেমন ধরুন আপনি নাইট ক্রীম নিশ্চিন্তে ব্যবহার করতে পারেন। চেষ্টা করুন মুখে এমন ক্রীম লাগাতে যা’তে আছে ভিটামিন ই আর অ্যান্টি রিঙ্কল গুণাগুণ। এত আপনার ত্বকের কোমল ভাব বজায় থাকবে। শোওয়ার ঠিক আগে ক্রীম লাগালে দেখা যায় তা ত্বকের সঙ্গে সহজে মিশে যায়।

নিয়মিত মাসাজ করুন।

শীত আসার সঙ্গে সঙ্গেই নিজের ত্বকের প্রতি যত্নশীল হওয়াটা অত্যন্ত জরুরী। আর যত্ন নেওয়ার প্রথম ধাপ হচ্ছে অলিভ অয়েলের (Olive Oil) নিয়মিত ব্যবহার। অলিভ অয়েল লাগানোর সবচেয়ে আদর্শ সময় হচ্ছে স্নানের ঠিক আগে। স্নানের আগে আপনার উচিৎ অলিভ অয়েল নিয়ে গলা থেকে পা পর্যন্ত ভালো করে মালিশ করা যা’তে তা ত্বকে ভালো করে বসে যায়। তেল পুরোপুরি শুকিয়ে যেতে দেওয়াটা বেশ জরুরী। এর ব্যবহারে আপনার ত্বক হয়ে উঠবে সতেজ এবং সুন্দর।

এ ছাড়া শীতকালে আরও কয়েকটা ব্যাপারে আপনার সতর্ক হওয়া উচিৎ ঃ

পায়ের খেয়াল রাখবেন।

শীতকালে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে আপনার পা কারণ পা বেশির ভাগ সময় ভেজা থাকে। পায়ে এমন লোশন লাগানো উচিৎ যাতে পেট্রোলিয়াম জেলি বা গ্লিসারিন আছে। আর যে'টা দরকার সে'টা হল পায়ে নিয়মিত স্ক্রাব করা যাতে কোন ক্রীম লাগালে তা ভিতর পর্যন্ত যায়।

ফুটন্ত গরম জলে স্নান করবেন না।

ফুটন্ত গরম জলে স্নান করা উচিৎ নয়। আর স্নানের জলে কয়েক ফোঁটা বেবি অয়েল, অলিভ অয়েল বা কোনও বডি অয়েল অবশ্যই মিশিয়ে নেওয়া উচিৎ। এ'তা ত্বক হয়ে উঠবে আরও মোলায়েম। শীতকালে স্টীমবাথও আপনার ত্বকের জন্য রীতিমত উপকারী হতে পারে। এ'তে আপনার ত্বকের শুষ্কতা অনেকটা দূর হবে।

ঠোঁটের যত্ন নিন।

শীতের রুক্ষতার প্রভাব ঠোঁটের ওপর খুব পড়ে। কাজেই এই সময় আপনার উচিৎ ঠোঁটে নিয়মিত দুধের সর বা লিপ বাম লাগানো। আজকাল বাজারে এমন অনেক বাম পাওয়া যায় যাতে ট্রী অয়েল থাকে। সেগুলোর নিয়মিত ব্যবহারে ঠোঁট নরম, মোলায়েম আর চকচক থাকবে।

আর সবার শেষে যে'টা বলা দরকার; রোজ যতটা সম্ভব জল আর সবুজ শাকসবজি খান। এ'তে আপনার শরীর ভালো থাকবে আর ত্বকও তরতাজা থাকবে।

 

Translated by Tanmay Mukherjee

loader