সেলিব্রিটিদের ব্লাউজ ডিজাইনের গোপন রহস্য যা ব্যবহার করে হয়ে উঠুন আরও আকর্ষক!

আপনার পোশাকে ব্লাউজের গুরুত্ব অপরিসীম! লেহেঙ্গা হোক বা শাড়ি বা হঠাৎ খেয়ালে পরা হাফ-শাড়ি; ব্লাউজই ঠিক করে দেবে কোন পোশাক আপনাকে কতটা মানাচ্ছে। পোশাকের এই গুরুত্বপুর্ণ সংযোজনের জন্য তাই শুধু ফিটিংসের দিকে খেয়াল রাখলেই হবে না, কাপড় সঠিক ভাবে বেছে নিতে হবে, রঙ বাছাই মানানসই হতে হবে আর সব চেয়ে বড় কথা তা হাল-ফ্যাশনের হতে হবে।

সেলিব্রেটিরা বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বিভিন্ন রকমের শাড়ি আর ব্লাউজে নিজেদের রূপ মেলে ধরছেন, সেগুলোর মধ্যে থেকেই দুর্দান্ত কিছু ব্লাউজের ডিজাইন আমরা বেছে নিয়েছি আপনার জন্য।  এ গুলো ব্যবহার করে সামনের অক্টোবরের বিয়ের মরশুমে আপনি হয়ে উঠতে পারেন অনন্যা। আজ্ঞে না, বিয়ের মরশুমের আর খুব বেশি দেরী নেই কারণ আপনার হাতে এখনও কাজ অনেক পড়ে; সঠিক কাপড় বেছে নেওয়া, দর্জির কাছে ছোটা, সঠিক এম্ব্রয়ডারি পছন্দ করা; এত সব কাজে মাস দুয়েক সময় তো লাগবেই। ঠিকই শুনেছেন। দুই মাস সময় লাগবেই এবং এরপরও আপনাকে বিস্তর ঘাম ঝরাতে হবে আপনার দর্জিকে সঠিক ভাবে বোঝাতে আপনি ঠিক কী ধরনের ফিটিংস আর এম্ব্রয়ডারি খুঁজছেন।

একটা টিপ এই বেলা দিয়ে রাখিঃ দর্জির সঙ্গে কখনও তর্ক করবেন না। উনি যদি বলেন যে আপনার পছন্দের ডিজাইন ধোপে টিকবে না তাহলে তাঁকে সোজাসুজি এখান থেকে ছবি দেখিয়ে দিন; এরপর তাঁর মনে আর কোনও সন্দেহ থাকবে না বলেই আমাদের বিশ্বাস। মায়েদের আমরা খুব ভালোবাসি আর সে জন্যেই এই টিপ শেয়ার করা।

মায়েরা এটাও খেয়াল করবেন যে নীচে দেওয়া ডিজাইনের কতগুলো স্লীভলেস্‌ কারণ সে ডিজাইনটার গুণই এমন যে তা’তে আপনাকে স্লিম দেখাবেই। 

১। চিরাচরিত স্টাইলে নিজেকে সাজিয়ে তুলুন।

ব্লাউজের এই কাট ভারী বুকের থেকে দৃষ্টি সরিয়ে তন্বী ঘাড়ের ওপর এনে ফেলে। ঠিক যেমনটা আপনি চাইছিলেন।

২। স্বচ্ছ যা কিছু।

স্বচ্ছতা বেশ আকর্ষক দেখাতেই পারে, তবে সে ক্ষেত্রে পিঠের দিকে কিছু সুন্দর ডিজাইন যোগ করুন মেদস্ফীতির থেকে নজর সরাতে।

৩। ভেলভেটের চমক।

এর সঙ্গে সোনালী চমক যোগ করলেই আপনার কোমরের দিকে আর দৃষ্টি যাবেই না কারণ ব্লাউজের সৌন্দর্যেই সবার দৃষ্টি আটকে যাবে।

৪। স্বর্ণালী ও সুন্দর।

আপনার ব্রকেড আর বেনারসির জন্যে এই ব্লাউজের জুড়ি নেই। সঠিক দর্জি খুঁজে নিন যে সঠিক ফিটংয়ে ব্লাউজটা বানাতে পারবে যা’তে আপমার সৌন্দর্য পরিস্ফুট হয়।

৫। সূক্ষ্ম অথচ সেক্সি।

এই স্টাইলটা ক্ল্যাসিকাল রুচিসম্মত এবং ভারি শাড়ির সঙ্গে মানানসই। পিঠের দিকের যে কোনও খামতি ঢাকতে রয়েছে শ্যান্ডেলিয়ার হ্যাঙ্গিংস এবং আপনার স্টাইলে থাকবে আধুনিক সৌন্দর্যের ছোঁয়া।

৬। ছিমছাম ডিজাইন। 

বিশেষ করে যখন আপনি নিজের পিঠের দিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চান। যাদের শরীরের নিম্নভাগ ভারিক্কী, এ’টা বিশেষত তাঁদের জন্য মানানসই। 

৭। কাঁধকে আরও আকর্ষক করে তুলতে। 

ঘাড়ের কাছের ডিজাইন সুচারু হয়ে উঠলে হাতের মেদ অনেকটা ঢাকা পরে যায়। বিশেষত ব্লাউজের হাতার কাপড় সামান্য স্বচ্ছ হলে আরও দৃষ্টিনন্দন হয়ে উঠতে পারে। সবার দৃষ্টি ঘাড়ের কাছের নক্সাতেই আটকে যেতে বাধ্য।

৮।  এম্ব্রয়ডারি।

সন্ধেবেলার মেহফিলে নিজের রূপের গ্ল্যামারকে ফুটিয়ে তুলতে চাইলে এ’টাই আপনার প্রথম পছন্দ হওয়া উচিৎ।  ব্লাউজের ওপর করা ফুলের নক্সার জন্য আড়াআড়ি ডিজাইনের স্ট্রাইপ চোখে লাগছে না। আপনার সংগ্রহে যদি এমন শাড়ি থাকে যা পড়লে আপনাকে একটু ভারিক্কী দেখায়, সে ক্ষেত্রে সেই সব শাড়ির সঙ্গে এমন ধরণের ব্লাউজ পরতে পারেন।

৯. মনোক্রোম ব্লাউজ।

এই ঝকঝকে ডিজাইনের ব্লাউজ আপনার বেশির ভাগ ট্র‍্যাডিশনাল শাড়ির সঙ্গে মানাবে ভালো। এ ক্ষেত্রে যেমন বিদ্যার হাত তেমন লম্বা না হওয়া সত্ত্বেও এই ব্লাউজের মনোক্রমিক হাতার জন্য ওর হাত দু’টো বেশ লম্বাটে আর তন্বী লাগছে। 

১০. জ্যাকেট ব্লাউজ।

এ ধরণের ব্লাউজ গায়ে চাপানোর সেরা সময় হচ্ছে শীতকাল। এর ভারি কাপড়ের আপনাকে শুধু উষ্ণতায় মুড়ে রাখবে তাই নয়, আপনাকে আরও স্লিম আর স্টাইলিশও করে তুলবে।

১১. ফুরফুরে মেজাজ।

নিমৃত কৌরের এই কালচে ফুরফুরে ডিজাইনের পোশাক গ্রীষ্মের জন্য আদর্শ। এই ব্লাউজ গরমের মরশুমে আপনাকে দেবে ফুরফুরে মেজাজ আর যৌবনের উচ্ছ্বাস। তাছাড়া এ’তে হাতের মেদও ঢাকা পড়ে।

১২. উলটো হাওয়া।

এ’টা নিশ্চিন্তে যে কোনও সাদামাঠা শাড়ির সঙ্গেও পরে।ফেলতে পারেন। খুব সাধারণ কোনও ফুলের নক্সাওলা শাড়িও এই ব্লাউজের গুণে হয়ে উঠতে পারে অত্যন্ত স্টাইলিশ আর সবার মাঝে আপনি হয়ে উঠবেন আরও আকর্ষক।

১৩. সুচারু ও নজরকাড়া।

এ’টা বিশেষত সেই মায়েদের জন্য যারা গতানুগতিক জবড়জং এম্ব্রয়ডারির তুলনায় পরিধানের আরামকে বেশি গুরুত্ব দেন। তাছাড়া এর মনোক্রোমাটিক নান্দনিকতায় আপনাকে সহজেই আরও স্লিম ও আকর্ষক দেখায়।

১৪. সিঙ্গল শোল্ডার।

এ’তে আপনাকে দেখাবে আরও স্লিম আর কেতাদুরস্ত। খেয়াল রাখবেন ব্লাউজ বানানোর সময় যা’তে ফিটিংসে কোনও গণ্ডগোল না হয়।

১৫. হাই ব্যাকড ব্রোকেড।

নিজের শাড়ির ওপর তেমন ভাবে দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাইছেন না? তা’হলে এইটা আপনার জন্য আদর্শ। এর পিঠের দিকের লম্বাটে ডিজাইনের জন্য আপনাকে আরও স্লিম আর লম্বা দেখাবে।

Translated by Tanmay Mukherjee

loader